বি.দ্রঃদৈনিক নতুন ভাবনাপত্রিকায় প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার সম্পূর্ন লেখকের/প্রতিনিধির।আমরা লেখক প্রতিনিধির চিন্তা ও মতামতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল।প্রকাশিত লেখার সাথে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল সবসময় নাও থাকতে পারে।তাই যে কোনো লেখার জন্য অত্র পত্রিকার কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।

তাজা খবর

চট্টগ্রামকে পর্যটন নগরীতে রুপান্তর করব। ডা: শাহাদাত হোসেন

মোঃ সিরাজুল মনিরঃ-
চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে বিএনপির মেয়র প্রার্থী ডা. শাহাদাত হোসেন বলেছেন পুরো চট্টগ্রাম পর্যটন শিল্পের অপার সম্ভবনার জায়গা। এখানে রয়েছে ইতিহাসের নানান গুরুত্বপূর্ণ স্বারক, পতেঙ্গা সমুদ্র সৈকত ও ফয়’স লেকসহ অসংখ্য পর্যটন স্পট। আমি মেয়র নির্বাচিত হলে চট্টগ্রামকে নিরাপদ ও স্বাস্থ্য সম্মত পর্যটন নগরী হিসেবে গড়ে তুলতে পরিকল্পিত পদক্ষেপ গ্রহণ করবো। তিনি আজ বুধবার (২০ জানুয়ারী) দিনব্যাপী নগরীর ৯নং উত্তর পাহাড়তলী ও ১০নং উত্তর কাট্টলী ওয়ার্ডে ধানের শীষ প্রতীকের গণসংযোগকালে এসব কথা দেন। সকাল থেকে বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা আমান উল্লাহ আমান, কেন্দ্রিয় সদস্য নাজিম উদ্দিন আলম ও হুম্মাম কাদের চৌধুরীসহ বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মী ও সমর্থকদের সাথে নিয়ে ডা. শাহাদাত হোসেন উত্তর পাহাড়তলীর ওয়ার্ডের ফয়’স লেক নুরিয়া মাদ্রাসার সামনে থেকে গণসংযোগ শুরু করে আব্দুল হামিদ সড়ক, আকবরশাহ, শহীদ লেইন, দুলালাবাদ, সিডিএ মার্কেট, ডিটি রোড়, অলঙ্কার মোড়, আব্দুল আলী নগর, নেছারিয়া মাদ্রাসা, জাকির হোসেন রোড়, মালিপাড়া, কৈবল্যধাম আশ্রম, পূর্ব ফিরোজশাহ, বিশ^কলোনী, জানারখীল রেল গেইট চত্বর গিয়ে শেষ হয়। উত্তর কাট্টলী ওয়ার্ডের গণসংযোগ মোস্তফা হাকিম হাসপাতালের সামনে থেকে শুরু হয়ে বশির মো. বাড়ী সড়ক, গার্লস স্কুল, হিন্দুপাড়া, চৌধুরী বাড়ী, বিশ্বাস  পাড়া, কমিউনিটি সেন্টার মোড়, পন্ডিত বাড়ী, কর্ণেলহাট মোড়, সিডিএ আবাসিক, নিউ মনসুরাবাদ, আগ্রাপাড়া, নবাববাড়ী রেস্টুরেন্ট মোড়, মনসুরাবাদ উপল ক্লাবের সামনে গিয়ে পথসভায় মিলিত হয়। এসময় ডা. শাহাদাত হোসেন বলেন, অপরূপ প্রাকৃতিক সৌন্দয্যের পাশাপাশি হাজার বছরের ঐতিহ্য সমৃদ্ধ এলাকা চট্টগ্রাম। এখানে ঐতিহাসিক ও পুরাতাত্তি¡ক নির্দশনে ভরপুর। বিএনপির আমলে পাহাড়তলী চক্ষু হাসপাতাল, ইউএসটিসি, চট্টগ্রাম টেলিভিশন কেন্দ্র স্থাপনসহ ফয়’সলেক ও চিড়িয়াখানাকে আধুনিকায়ন করা হয়েছিল। পরবর্তিতে পর্যটন শিল্পের বিকাশে সুপরিকল্পিত পদক্ষেপ না থাকায় এ শিল্পকে জাতীয় অর্থনীতির অন্যতম স্তম্ভ করা যায়নি। এ খাতে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিলে চট্টগ্রাম পর্যটকদের স্বর্গভুমি বিবেচিত হতো। পর্যটন শিল্পকে জাতীয় আয়ের প্রধান খাত হিসেবে গ্রহণ করা সম্ভব হবে। তিনি এলাকাবাসীদের উদ্দেশ্যে বলেন, আপনারা দেশের জনগোষ্ঠির একটি অংশ। কিন্তু এসব এলাকার ভাসমান, বস্তিবাসী ও ভুমিহীন মানুষের সংখ্যা বেশি। তারা সুবিধা ও শিক্ষা বঞ্চিত। কিন্তু এসব হতদরিদ্র জনগোষ্ঠির ভাগ্য উন্নয়নের কোন কার্যকর পদক্ষেপ নেয়া হয়নি। এখানে পাহাড় ধ্বস, সেনিটেশন, শিক্ষা, যাতায়াত ও বিভিন্ন সমস্যা দীর্ঘদিন বিরাজমান রয়েছে। আমি মেয়র নির্বাচিত হলে হতদরিদ্র জনগোষ্ঠির জন্য নিরাপদ আবাসন সমস্যার সমাধানে অগ্রাধিকার দিবো। গণসংযোগে অংশ নিয়ে বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা ও সাবেক ডাকসুর ভিপি আমান উল্লাহ আমান বলেন, আওয়ামী লীগ গণতন্ত্র হরণকারী একটি দল। তারা দিনের ভোট রাতে নিয়ে সংসদে গিয়ে মানুষের বাক স্বাধীনতা কেঁড়ে নিয়েছে। মানুষের ভোটের অধিকার কেড়ে নিয়েছে। তারা মুখে গণতন্ত্রের কথা বলে বাকশাল কায়েম করেছে। চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে ভোট চোরদের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হয়ে ধানের শীষকে জয়ী করতে হবে। ডা. শাহাদাত হোসেন একজন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক ও পরিচ্ছন্ন রাজনীতিবিদ। চট্টগ্রামের পরিকল্পিত উন্নয়ন করতে ডা. শাহাদাতের বিকল্প নেই। আগামী ২৭ জানুয়ারী তাকে মেয়র পদে নির্বাচিত করুন। গণসংযোগকালে উপস্থিত ছিলেন-কেন্দ্রিয় বিএনপির সদস্য ও ডাকসুর সাবেক এজিএস নাজিম উদ্দীন আলম, হুম্মাম কাদের চৌধুরী, চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সদস্য সচিব আবুল হাশেম বক্কর, যুগ্ন আহবায়ক এস কে খোদা তোতন, নাজিমুর রহমান, চাকসু ভিপি নাজিম উদ্দিন, বিএনপি নেতা ইসহাক কাদের চৌধুরী, নগর বিএনপির সদস্য আহমেদুল আলম চৌধুরী রাসেল, গাজী সিরাজ উল্লাহ, মঞ্জুর আলম চৌধুরী মঞ্জু, মো: কামরুল ইসলাম, আকবরশাহ থানা বিএনপির সভাপতি ও উত্তর পাহাড়তলী ওর্য়াড কাউন্সিলর প্রার্থী আবদুস সাত্তার সেলিম, সাধারন সম্পাদক মাইনুদ্দিন চৌধুরী মাইনু, বিএনপি নেতা ন‚রুল আকবর কাজল, আলী আজম চৌধুরী, রেহান উদ্দীন প্রধান, স্বেচ্ছাসেবক দলের সা: সম্পাদক বেলায়েত হোসেন বুলু, উত্তর কাট্টলী ওর্য়াড বিএনপির সভাপতি ও কাউন্সিলর প্রার্থী রফিক উদ্দীন চৌধুরী, মহিলা কাউন্সিলর প্রার্থী ছকিনা বেগম, উত্তর পাহাড়তলী ওর্য়াড বিএনপির সভাপতি জমির আহমেদ, সা: সম্পাদক হাবিবুর রহমান চৌধুরী, উত্তর পাহাড়তলী ওর্য়াড বিএনপির সা: সম্পাদক ফরিদুল আলম চৌধুরী, অঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ দিদারুল ফেরদৌস, হাবিবুর রহমান মাসুম, শহীদুল্লাহ বাহার, জিয়াউর রহমান জিয়া, আলী মর্তুজা খান, জমির উদ্দীন নাহিদ, মাসুম চৌধুরী, নুর মোহাম্মদ, মনজুর আলম, আলী আক্কাস, মো: আলাউদ্দীন, শওকত আলী বাবুল, নুর বক্স মিলন, মেজবাহ উদ্দিন, মো. ইউনুছ প্রমুখ।
Alert! This website content is protected!