বি.দ্রঃদৈনিক নতুন ভাবনাপত্রিকায় প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার সম্পূর্ন লেখকের/প্রতিনিধির।আমরা লেখক প্রতিনিধির চিন্তা ও মতামতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল।প্রকাশিত লেখার সাথে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল সবসময় নাও থাকতে পারে।তাই যে কোনো লেখার জন্য অত্র পত্রিকার কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।

তাজা খবর

জেলা ছাত্রলীগ নেতা পার্থ অ্যালকোহল নয় ফুড পয়জোনিং এ অসুস্থ

শাহরিয়ার কবির ব্যুরো চিফঃ-খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল সুত্র জানিয়েছে পাইকগাছায় অ্যালকোহল পানে অসুস্থ হন নি জেলা ছাত্রলীগ নেতা পার্থ প্রতীম চক্রবর্তী। গত ২৫ নভেম্বর খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সহকারী রেজিষ্টার মেডিসিন ইউনিট -২ স্বাক্ষরিত ছাড়পত্রে জানা যায় পার্থ প্রতীম এ হাসপাতালে ফুড পয়জোনিং নিয়ে ভর্তি হয়েছিলেন। অনুসন্ধানে জানা যায়, গত ২০ নভেম্বর জেলা ছাত্রলীগ নেতা পার্থ তার বন্ধু অমিতের বিয়ে উপলক্ষে যশোর জেলার কেশবপুর উপজেলায় একটি বিয়ের অনুষ্ঠানে যায়। সেখানে তৈলাক্ত জাতীয় খাবার খেয়ে বাড়ীতে ফিরে আসে। পার্থর পারিবারিক সুত্র জানায়,তার দীর্ঘদিন গ্যাসের সমস্যা থাকায় উক্ত খাবারে বদ হজমের কারণ হয়ে দাড়ায়। ২২ নভেম্বর পার্থ শারীরিক ভাবে অসুস্থ বোধ করায় তাকে পাইকগাছা হাসপাতালে ভর্তি করলে কর্তব্যরত ডাক্তার উন্নত চিকিৎসার জন্য খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেন। এ সময় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ছাড়পত্রে এইচ/ ও অ্যালকোহল লিখলে কিছু অতি উৎসায়ী ব্যক্তি সাংবাদিকদের নিকট তাদের মত ব্যাখ্যা দেন এবং ছাত্রনেতা পার্থ কে হেয় প্রতিপন্ন করার জন্য চেষ্টা চালাই । যার পরিপ্রেক্ষিতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ও কয়েকটি আঞ্চলিক পত্রিকায় অ্যালকোহল পানে অসুস্থ শিরোনামে সংবাদ প্রকাশ হয়। এ বিষয়ে জানতে চাইলে পাইকগাছা হাসপাতালের স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ নিতীষ চন্দ্র গোলদার জানান, ছাড়পত্রে এইচ/ ও মানে হিস্ট্রি ওফ অর্থাৎ রোগীর নিকটতম লোকজনের দেয়া তথ্যটা প্রথমিক পর্যায়ে লেখা হয়। এ লেখাটা পরীক্ষা নিরিক্ষা ছাড়াই লেখা হয়। পরে পরীক্ষা করে দেখা হয় আসল সমস্যাটা কি। কিন্তু পার্থর পরীক্ষা না করে খুমেক হাসপাতালে পাঠানো হয়েছিল। ওখানকার রিপোর্ট বিবেচ্য বিষয় হিসাবে ধরা হয়।

Alert! This website content is protected!