বি.দ্রঃদৈনিক নতুন ভাবনাপত্রিকায় প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার সম্পূর্ন লেখকের/প্রতিনিধির।আমরা লেখক প্রতিনিধির চিন্তা ও মতামতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল।প্রকাশিত লেখার সাথে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল সবসময় নাও থাকতে পারে।তাই যে কোনো লেখার জন্য অত্র পত্রিকার কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।

তাজা খবর

নওগাঁর ট্রেনে তুলে দিয়ে নিরুদ্দেশ করা সেই শিশুর দায়িত্ব নিলেন ইউপি চেয়ারম্যান

নুরুজ্জামান লিটন জেলা প্রতিনিধি নওগাঁঃ মা-বাবা হারা অনাথ ১০ বছরের আলোচিত সেই শিশু রফিকুল ইসলামকে লালন-পালন করার জন্য দায়িত্বভার নিলেন নওগাঁর রাণীনগরের গোনা ইউপি চেয়ারম্যান আবুল হাসনাত খাঁন হাসান। ২৭ জানুয়ারি,বুধবার দুপুরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও জনপ্রতিনিধিদের উপস্থিতিতে এবং পরিবারের লোকজনের উপস্থিতিতে ও সম্মতিতে গোনা ইউপি চেয়ারম্যান আবুল হাসনাত খাঁন হাসান শিশুটির দায়িত্বভার গ্রহন করেন। শিশু রফিকুল ইসলাম নওগাঁর রাণীনগর উপজেলার গোনা ইউনিয়নের ভবানীপুর গ্রামের মৃত বাদেশ মন্ডলের ছোট ছেলে। সে দ্বিতীয় শ্রেণীতে লেখা-পড়া করেন। রাণীনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আল মামুন জানান, গোনা ইউপি চেয়ারম্যান আবুল হাসনাত খাঁন হাসান শিশুটিকে লালন-পালন করার জন্য ইচ্ছে পোষন করেন। পরে শিশু রফিকুলের পরিবারের লোকজনের উপস্থিতিতে ও সকলের সম্মতিতে রফিকুলকে লালন-পালন করার জন্য সাময়িকভাবে ইউপি চেয়ারম্যান হাসানকে দায়িত্বভার দেওয়া হয়েছে। শিশুটিকে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে সার্বিক সহযোগীতা করাসহ তার খোঁজ খবর নেওয়া হবে। ইউএনও আরো জানান, গত শনিবার রাতে রাজবাড়ির বালিয়াকান্দি উপজেলার বহরপুর রেলওয়ে স্টেশনে শিশু রফিকুলকে পাওয়া যায়। রোববার দুপুরে সেখানকার স্থানীয় সোনার বাংলা সমাজ কল্যাণ ও ক্রীড়া সংসদের আহ্বায়ক এসএম হেলাল খন্দকার শিশুটিকে বালিয়াকান্দি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে নিয়ে যান। পরে বালিয়াকান্দি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আমাদের বিষয়টি অবগত করেন। তারপর বুধবার শিশু রফিকুলকে রাণীনগরে নিয়ে আসা হয়। রাণীনগর উপজেলার গোনা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবুল হাসনাত খাঁন হাসান বলেন, শিশুটির মা-বাবা কেউ বেঁচে নেই। বড় ভাই ও ভাবির কাছে থাকতো। তাদের অভাবের সংসার বড় ভাইটিও শারীরিকভাবে অক্ষম। তাই শিশু রফিকুলকে লালন-পালন করার দায়িত্বভার আমি নিয়েছি।

Alert! This website content is protected!