বি.দ্রঃদৈনিক নতুন ভাবনাপত্রিকায় প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার সম্পূর্ন লেখকের/প্রতিনিধির।আমরা লেখক প্রতিনিধির চিন্তা ও মতামতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল।প্রকাশিত লেখার সাথে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল সবসময় নাও থাকতে পারে।তাই যে কোনো লেখার জন্য অত্র পত্রিকার কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।

তাজা খবর

নওগাঁর ধামুইরহাটের আলতাদীঘি শীতে ফিরেছে নতুন রূপে

 নুরুজ্জামান লিটন,জেলা প্রতিনিধি,নওগাঁঃ নওগাঁ জেলা ইতিহাস আর ঐতিহ্যে ভরা।তার ই একটি অংশ আলতাদীঘি।শীতকালে এদেশে আসে নানা জাতের অতিথি পাখি। অতিথি পাখির কলকাকলিতে মুখর নওগাঁর ধামইরহাটের আলতাদিঘী। ঝাঁক বেঁধে আকাশে ডানা মেলে ওড়াউড়ি আর কিচিরমিচির শব্দ মুগ্ধ করছে দর্শনার্থীদের। পাখির এ সৌন্দর্য ধরে রাখতে বন বিভাগ নিয়েছে নানা পদক্ষেপ। শীতের আগমনের সঙ্গে চারদিক থেকে ঝাঁক বেঁধে ছুটে এসেছে অতিথি পাখি। পাখির কিচির মিচির শব্দে যেন মুখরিত থাকে চারপাশ। এক অপরূপ নতুন সাজে মেতে উঠেছে আলতাদিঘী শালবন জাতীয় উদ্যান। ধামইরহাট বনবিট কর্মকর্তা মো.আব্দুল মান্নান বলেন, শীতের আদ্রতা বাড়তে থাকায় উদ্যানের আলতাদিঘীতে এসেছে অতিথি পাখি। এদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য রাজ সরালি, পাতি সরালি, বালিহাঁস, রাজহাঁস, মান্দারিন হাঁস, গোলপী রাজহাঁস, ঝুটি হাঁস, চকাচকি, চিনা হাস, কালোহাঁস, বুনো হাঁস, লালশির, ণীলশীর, মানিকজোড়া, জলপিপি, ডুবোরী পাখি, হরিয়াল পাখি, রামঘূঘু, ও কাদাখোচা। ধামইরহাটের যুব সমাজের কয়েকজন যুবক বলেন, শীতকালে আলতাদিঘীতে অতিথি পাখি আসার সৌন্দর্য বৃদ্ধি পেয়েছে। পরিবার পরিজন নিয়ে নিরিবিলি পরিবেশে বর্তমানে দিঘীর পাড়ে শালবনে প্রীতিভোজ অনুষ্ঠান করার উপযুক্ত সময়। ওইয়ের ঢিবি আর চারিদিকে ভরে থাকা গাছে প্রকৃতি যেন বন্ধুত্ব করতে চায় সবার সাথে।

Alert! This website content is protected!