বি.দ্রঃদৈনিক নতুন ভাবনাপত্রিকায় প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার সম্পূর্ন লেখকের/প্রতিনিধির।আমরা লেখক প্রতিনিধির চিন্তা ও মতামতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল।প্রকাশিত লেখার সাথে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল সবসময় নাও থাকতে পারে।তাই যে কোনো লেখার জন্য অত্র পত্রিকার কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।

তাজা খবর

নওগাঁ পৌরসভা নির্বাচনে পৌর এলাকা জুড়ে উৎসবমুখর পরিবেশে;হবে ত্রিমুখী লড়াই

নুরুজ্জামান লিটন,জেলা প্রতিনিধি নওগাঁঃ দেশের অন্যান্য পৌর নির্বাচনের ব্যতিক্রম আবহাওয়া বিরাজ করছে নওগাঁয়। তৃতীয় ধাপে নওগাঁ পৌরসভা নির্বাচন আগামী ৩০ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচনকে সামনে রেখে প্রচারে পিছিয়ে নেই কোনও প্রার্থী। পুরো পৌরসভা জুড়ে ব্যানার, পোস্টার ও লিফলেটের সমারোহ। প্রচণ্ড শীত ও করোনার প্রভাবকে পেছনে ফেলে মেয়র ও কাউন্সিলর ও সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর প্রার্থীরা চষে বেড়াচ্ছেন ভোটারদের বাড়ি বাড়ি। পাড়া-মহল্লা, চায়ের স্টলে আড্ডাসহ সবখানে এখন চলছে নির্বাচনি আলোচনা। প্রার্থীরা ভোটারদের সঙ্গে করছেন কুশল বিনিময়, উঠান বৈঠক ও বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষদের সঙ্গে চলছে আলোচনা। পাশাপাশি ভোটারদের দিচ্ছেন নানা প্রতিশ্রুতি। এছাড়া সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমগুলোতে নিজেদের জানান দিচ্ছেন প্রার্থীরা। নওগাঁ পৌরসভার উন্নয়ন করতে বিভিন্ন প্রতিশ্রুতি দিয়ে যাচ্ছেন তারা। নির্বাচনি প্রচারণায় যেন দম ফেলার সময় নেই কোনও প্রার্থীর। নওগাঁ পৌর নির্বাচনে মেয়র পদে লড়াই করছেন পাঁচ প্রার্থী। আওয়ামী লীগ থেকে নৌকা প্রতীকে লড়ছেন জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি নির্মল কৃষ্ণ সাহা, বিএনপি থেকে ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে লড়ছেন জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি ও বর্তমান পৌর মেয়র নজমুল হক সনি, জাতীয় পার্টি থেকে লাঙ্গল প্রতীকে ইফতারুল ইসলাম বকুল, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ থেকে হাত পাখা প্রতীকে লড়ছেন আতিকুর রহমান, স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে নারিকেল গাছ নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন নওগাঁ চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির সভাপতি ইকবাল শাহরিয়ার রাসেল । নির্বাচনে মেয়র পদে মোট পাঁচ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করলেও লড়াই হবে মূলত ত্রিমুখী। আলোচনায় রয়েছেন আওয়ামী লীগের মনোনীত (নৌকা) প্রার্থী নির্মল কৃষ্ণ সাহা, বিএনপি মনোনীত প্রার্থী (ধানের শীষ) বর্তমান মেয়র নজমুল হক সনি এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী (নারিকেল গাছ প্রতীক) নওগাঁ চেম্বার অব কর্মাস অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির সভাপতি ইকবাল শাহরিয়ার রাসেল। মেয়রপ্রার্থী নির্মল কৃষ্ণ সাহা বলেন, মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক প্রয়াত আব্দুল জলিল নওগাঁ পৌরসভাকে একটি আধুনিক পৌরসভায় পরিণত করতে চেয়েছিলেন। পৌরবাসী নির্বাচনে নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে আব্দুল জলিলের স্বপ্ন আধুনিক পৌরসভা গঠনে সহায়তা করবেন বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি। তিনি আরও বলেন, দেশের সার্বিক উন্নয়নে আওয়ামী লীগ সরকারের বিকল্প নেই। তার প্রমাণ দেশবাসী পেয়েছে। যদি আমি জয়ী হই তাহলে পৌরসভাকে মাদক, সন্ত্রাসমুক্ত ও আধুনিক ডিজিটাল মডেল পৌরসভা হিসেবে গড়ে তুলবো। বিএনপি মনোনীত প্রার্থী নজমুল হক সনি বলেন, আমি জনগণের ভোটে পর-পর দুইবার নির্বাচিত পৌর মেয়র। পৌরবাসীর দোয়া ও সমর্থনের কারণেই তা সম্ভব হয়েছে। আসন্ন পৌর নির্বাচনে পুনরায় বিজয়ী হওয়ার আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি। তিনি বলেন, পৌরবাসীকে আধুনিক ও মানসম্মত পৌরসভা উপহার দিতে মহা পরিকল্পনার অংশ হিসেবে রাস্তা নির্মাণ, রাস্তা প্রসস্তকরণ, ড্রেন নির্মাণ কাজকে তরান্বিত করেছি। নওগাঁ পৌরসভায় দুটির বেশি আরসিসি ছিল না, আমি রাস্তার পাশাপাশি আরসিসি ড্রেন নির্মাণের ব্যবস্থা করেছি। পৌর এলাকা আলোকিত করতে শতভাগ বিদ্যুতায়নের ব্যবস্থা করেছি। সবার জন্য বিশুদ্ধ পানি নিশ্চিত করেছি। সবার সহযোগিতায় উন্নত পৌরসভা গড়ে তুলতে কাজ করার কথা জানান তিনি। এর জন্য অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠানের দাবি জানান তিনি। নির্বাচনকে ঘিরে পুরো পৌর এলাকা জুড়ে এখন উৎসবমুখর পরিবেশের বিরাজ করছে। এখন ভোটাররা তাদের পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দেওয়ার অপেক্ষায় রয়েছেন। উল্লেখ্য, ১৯৬৩ সালে নওগাঁ পৌরসভা প্রতিষ্ঠা হয়। সদর উপজেলার প্রাণকেন্দ্রে ছোট যমুনা নদীর তীরে এর অবস্থান। পৌরসভার আয়তন ৩৮.৩৬ বর্গ কিলোমিটার। নওগাঁ পৌরসভায় মোট ৯টি ওয়ার্ড ও ৩টি সংরক্ষিত ওয়ার্ড। নির্বাচনে মোট ৪১টি কেন্দ্রে ৩৩২টি বুথে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। নওগাঁ পৌরসভার মোট ভোটার সংখ্যা এক লাখ ১৬ হাজার ২৪০ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ৫৭ হাজার ২৩৯ জন এবং নারী ভোটার ৫৯ হাজার একজন। জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মাহমুদ হাসান বলেন, নওগাঁ পৌরসভা নির্বাচনকে সামনে রেখে সব প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে। একটি অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের লক্ষ্যে এরমধ্যে প্রস্তুতি প্রায় শেষের দিকে। এবারের নির্বাচনে মেয়র পদে পাঁচ জন, সাধারণ কাউন্সিলর পদে ৫৭ জন এবং সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে ১৯ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

Alert! This website content is protected!