বি.দ্রঃদৈনিক নতুন ভাবনাপত্রিকায় প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার সম্পূর্ন লেখকের/প্রতিনিধির।আমরা লেখক প্রতিনিধির চিন্তা ও মতামতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল।প্রকাশিত লেখার সাথে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল সবসময় নাও থাকতে পারে।তাই যে কোনো লেখার জন্য অত্র পত্রিকার কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।

তাজা খবর

নাগরপুরে মামলা তুলে নিতে বাদীকে হুমকি

নাগরপুর(টাঙ্গাইল)প্রতিনিধি:
টাঙ্গাইলের নাগরপুরে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে উপজেলার দপ্তিয়র ইউনিয়নের পাঁচ আরড়া গ্রামের মো. আতোয়ার শেখের ৫ম শ্রেণী পড়–য়া মেয়ে মোছা. তানিয়া আক্তার (১১) কে পিটিয়ে হত্যাচেষ্টা মামলার আসামীরা জামিনে বেরিয়ে  বাদীর পরিবারকে মামলা তুলে নিতে ও বাড়ি ছাড়ার হুমকি দিচ্ছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। হুমকির ঘটনায় তানিয়ার  বাবা পরিবারের নিরাপত্তা চেয়ে  টাঙ্গাইলের বিজ্ঞ আদালতে একটি অভিযোগ করেন।
এজাহার সূত্রে জানা যায়, ২১/৮/২০২০ বেলা ১১ টার দিকে উপজেলার দপ্তিয়র ইউনিয়নের পাঁচ আড়রা গ্রামের মো. আতোয়ারের ছেলে মো. আল-আমিন (১৮) এর সাথে একই গ্রামের খোরশেদ ঢালির সাথে মোহাম্মদ আলীর পরিত্যক্ত ভিটায় কথা কাটাকাটি হয়। কথা কাটাকাটির সময় আতোয়ার ও তার স্ত্রী রেখা বেগম এবং শিশু কন্যা তানিয়া এগিয়ে আসলে এক পর্যায়ে খোরশেদ ও তার স্ত্রী  মেয়ে দেশিও অস্ত্র-সস্ত্র নিয়ে অর্তকিত ভাবে হামলা চালায়। এ সময় শিশু তানিয়া বাঁধা দিতে গেলে তাকে বেদম পিটানো সহ ধারালো অস্ত্র দিয়ে মাথায় মারাত্মক ভাবে আঘাত করে। শিশুটি মাটিতে লুটিয়ে পড়লে অচেতন অবস্থায় স্থানীয়দের সহযোগীতায়  তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপে¬ক্সে নিলে চিকিৎসক তার অবস্থার অবনতি দেখে টাঙ্গাইল সদর হাসপাতালে প্রেরণ করেন।

তানিয়ার বাবা আতোয়ার শেখ বলেন, আমার ৫ম শ্রেণীতে পড়–য়া শিশু বাচ্চাকে খোরশেদের পরিবার লৌহার রড ও ধারালো অস্ত্র দিয়ে মাথায় আঘাত করে। পড়ে স্থানীয়দের সহযোগীতায় মুমূর্ষ অবস্থায় নাগরপুর সদর হাসপাতালে নিয়ে যাই। অবস্থার অবনতি দেখে ডাক্তার টাঙ্গাইল হাসপাতালে রেফাড করেন। এ ঘটনায় আমি নাগরপুর থানায় একটি মামলা করলে আসামীরা আমার উপর আরো ক্ষিপ্ত হন। নাগরপুর থানার পুলিশ আসামীর পক্ষ নিয়ে মামলাটি ভিন্ন দিকে প্রবাহীত করার চেষ্টা করে। বর্তমানে আসামীদের হুমকির কারনে পরিবারের সাথে নিজ বাড়িতে থাকতে পারছি না।

এ ঘটনায় তানিয়ার বাবা বাদি হয়ে খোরশেদ সহ তিন জনকে আসামি করে নাগরপুর  থানায় একটি হত্যাচেষ্টা মামলা করেন। ওই মামলায় খোরশেদ, রেবা বেগম ও বিথী আদালত থেকে জামিনে এসে বাদীর পরিবারকে মামলা তুলে নিতে প্রতিনিয়ত হুমকি দিয়ে আসছে।
যাহার পরিপ্রেক্ষিতে তানিয়ার বাবা পরিবারের নিরাপত্তা চেয়ে ওই ৩ জনকে আসামী করে টাঙ্গাইলের বিজ্ঞ আদালতে একটি মামলা করেন। প্রক্ষান্তরে আসামীরা উল্টো ওই পরিবারের নামে গত ২৩/১১/২০২০ টাঙ্গাইলের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে খোরশেদ বাদী হয়ে আতোয়ার সহ ৪ জনের বিরুদ্ধে ১০৭ ধারায় অভিযোগ দায়ের করে।

Alert! This website content is protected!