বি.দ্রঃদৈনিক নতুন ভাবনাপত্রিকায় প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার সম্পূর্ন লেখকের/প্রতিনিধির।আমরা লেখক প্রতিনিধির চিন্তা ও মতামতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল।প্রকাশিত লেখার সাথে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল সবসময় নাও থাকতে পারে।তাই যে কোনো লেখার জন্য অত্র পত্রিকার কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।

তাজা খবর

পরকীয়ায় ধরা খেলেন নওগাঁর বদলগাছী থানার এসআই আরিফুল;তদন্ত কমিটি গঠন

নুরুজ্জামান লিটন,জেলা প্রতিনিধি,নওগাঁঃ নওগাঁ জেলার বদলগাছী থানার উপ পরিদর্শক আরিফুল ইসলাম গত ১৭ই জানুয়ারী রাত সাড়ে দশটায় খুশি আক্তার (১৮) সাথে কদমগাছি গ্রামে পুলিশ কন্সটেবল ফারুক রাব্বির বাড়িতে পরকীয়া করতে গিয়ে হাতেনাতে এসআই আরিফুল সহ খুশি আক্তার কে গ্রামবাসি আটক করে। ঘটনাটি ঘটে বদলগাছী থানার কদমগাছি নামক গ্রামে। তথ্য সংগ্রহকালে কদমগাছি গ্রামের মো মিজানুর রহমান অনু(৩৫) বলেন, খুশি আক্তার জামালগন্জ গ্রামের মো হাফিজুল ইসলামের মেয়ে,আমি রাত ১০:৩০মি: কদমগাছি হাইস্কুলের রাস্তার পাশে আমার রাইচ মিল দেখতে যাওয়ার পথে পুলিশ কন্সটেবল ফারুক রাব্বির ফাকা বাড়ি হতে অপরিচিত নারী পুরুষের গলার আওয়াজ পাই।আমার মনে সন্দেহ হয় যে,ফারুক রাব্বি বাসায় থাকে না,তাহলে তার বাসায় কে? তখন গ্রামের কিছু জনগনকে সাথে নিয়ে ফারুকের ফাঁকা বাড়িতে গিয়ে দখি বদলগাছী থানার এসআই আরিফুল ইসলাম এবং খুশি ঘর থেকে বাহির হয়, আমরা এসআই আরিফুল কে জিজ্ঞাসা করলে বলে, খুশি আমার বিবাহিতা স্ত্রী। বিবাহের কাগজ পত্র দেখতে চাইলে আরিফুল বলে কাগজপত্র এসআই কামরুল কে আনার জন্য বলছি।তখন গ্রামবাসি থানায় এবং সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আঃ সালাম কে খবর দেয়া দেন। ঘটনাস্থলে এসআই কামরুল সংগীয় ফোর্স এবং চেয়ারম্যান আঃ সালাম উপস্থিত হলে ও তাদের কাছে বিবাহের কোনো কাগজ পত্র দেখাতে পারেনি এসআই আরিফুল ইসলাম। তখন স্থানীয় চেয়ারম্যান এবং এসআই কামরুল ক্ষিপ্ত গ্রামবাসিকে নিয়ন্ত্রণ করে এসআই আরিফুলের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে এসআই আরিফুল সহ খুশি আক্তার কে ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে।এ বিষয়ে এস আই আরিফুলের সাথে মুঠোফোনে মাধ্যমে যোগাযোগ করার চেষ্টা করলে সে ফোন রিসিভ করেন নি। এসআই কামরুল ইসলাম সত্যতা স্বীকার করে বলেন,এটা প্রেমঘাটিত বিষয়, এবিষয়ে আলফা টু এবং আলফা ওয়ান তথ্য সংগ্রহ করছে। ইউনিয়ন পারিষদের চেয়ারম্যান আঃ সালাম ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন,পরকীয়া করতে এসে গিয়ে গ্রামবাসির নিকট এসআই আরিফুল আটক হোন। ১৯ জানুয়ারি ২০২১,মঙ্গলবার, থানার অফিসার ইন চার্জ চৌধুরী জোবায়ের আহম্মেদ উক্ত ঘটনার বিষয়ে বলেন,এটা একটা প্রেমঘটিত বিষয়, এ ব্যপারে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে, তদন্ত শেষে অভিযোগ অভিযোগ প্রমাণিত হলে তার বিরুদ্ধে প্রসাশনিক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Alert! This website content is protected!