বি.দ্রঃদৈনিক নতুন ভাবনাপত্রিকায় প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার সম্পূর্ন লেখকের/প্রতিনিধির।আমরা লেখক প্রতিনিধির চিন্তা ও মতামতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল।প্রকাশিত লেখার সাথে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল সবসময় নাও থাকতে পারে।তাই যে কোনো লেখার জন্য অত্র পত্রিকার কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।

তাজা খবর

পাইকগাছায় প্রবাসী নারীকে বিয়ে করে ফাঁদে ফেলে লক্ষ-লক্ষ টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ

পাইকগাছা(খুলনা) প্রতিনিধিঃ-
 পাইকগাছায় প্রবাসী নারীকে ফাঁদে ফেলে বিয়ে করে লক্ষ-লক্ষ টাকা হাতিয়ে ঐ নারীকে তাড়িয়ে দেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় আদালতে মামলা হলে প্রবাসী ঐ নারীকে হুমকিকে রাখা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।
উপজেলার লস্কর গ্রামের মৃতঃ হেকমত সানার মেয়ে প্রবাসী নারী মর্জিনা বেগম জানান, পুর্ব পরিচয়ের সুত্রধরে ভিলেজ পাইকগাছার মৃতঃ নিয়ামত গাজীর ছেলে আক্তার সানার সাথে আমার বিয়ে হয়। আক্তার পেশায় একজন রাজমিস্ত্রী। বিয়ের পুর্বে ২০০৫ সাল থেকে পর্যায় ক্রমে মর্জিনা বেগম উমান,দুবাই ও সারজায় ১৩ বছর অবস্থান করেন। মর্জিনার অভিযোগ বিভিন্ন প্রয়োজনে স্বামী আক্তার বিদেশ থেকে আমার উপার্জিত অর্থ ব্যাংক থেকে উত্তোলন করেছেন। যার পরিমান ৭ লক্ষ-৪৫ হাজার টাকা। সে আরোও জানায় আমার মেয়ে জর্ডানে থাকে। এখান থেকে মেয়েও টাকা পাঠাতো আক্তারের নামে। ভিসার মেয়াদ শেষ হওয়ায় এক সময় বিদেশ থেকে দেশে এসে বাপের বাড়ীতে সংসার করতাম। এখানে থাকাবস্থায় আমার টাকায় আক্তার গ্রামের বাড়ীতে জমি ক্রয় করে ঘর বাঁধেন। সংসারে  বিভিন্ন টুকুটাকি বিষয় নিয়ে মনোমালিন্য দেখা দিলে সুচতুর স্বামী বিয়ের কাগজ পত্র সরিয়ে ফেলে সংসার করবেনা বলে আমাকে তাড়িয়ে দেন।
এ ঘটনায় প্রতিকার চেয়ে মর্জিনা বেগম বাদী হয়ে আক্তার আলীর বিরুদ্ধে পাইকগাছার সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে যৌতুক আইন সিআর-২৪৮/২১ ও অর্থ আদায়ের জন্য সিআর-৪/২১ পর-পর দু’টি মামলা করেছেন। জানাগেছে দু’টি মামলা তদন্তাধীন রয়েছে।
Alert! This website content is protected!