বি.দ্রঃদৈনিক নতুন ভাবনাপত্রিকায় প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার সম্পূর্ন লেখকের/প্রতিনিধির।আমরা লেখক প্রতিনিধির চিন্তা ও মতামতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল।প্রকাশিত লেখার সাথে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল সবসময় নাও থাকতে পারে।তাই যে কোনো লেখার জন্য অত্র পত্রিকার কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।

তাজা খবর

পাইকগাছায় মুকুলে মুকুলে ভরে গেছে আম গাছ; গাছের পরিচর্যায় ব্যস্ত সময় পার করছে চাষীরা

ইমদাদুল হক,পাইকগাছা,খুলনাঃ-
 পাইকগাছায় চলতি মৌসুমে ৫৮৫ হেক্টর জমিতে আমের চাষ হয়েছে। বর্তমানে ৮০ ভাগ গাছে মুকুল এসেছে। চাষিরা আম গাছের পরিচর্যায় ব্যস্ত সময় পার করছে। আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে আমের উৎপাদন ভাল হবে বলে আশা করছেন চাষিরা।
উপজেলা কৃষি অফিসের তথ্য অনুযায়ী অত্র উপজেলায় ছোট বড় মিলিয়ে প্রায় সাড়ে ৬শ আমের বাগান রয়েছে। চলতি মৌসুমে ৫৮৫ হেক্টর জমিতে গোপাল ভোগ, আম্রপালী, ল্যাংড়া, মল্লিকা, হিমসাগর, হাড়ি ভাঙ্গা, বারি-৪, বারি-১১, লতা ও ফজলি সহ বিভিন্ন প্রজাতির আমের চাষ হয়েছে। উল্লেখ্য অত্র এলাকা আম চাষের জন্য অত্যান্ত সমৃদ্ধ। এখানকার উৎপাদিত আম স্থানীয় চাহিদা মিটিয়ে পার্শ্ববর্তী জেলা সমূহে সরবরাহ হয়ে থাকে। ঢাকা সহ দেশের বিভিন্ন স্থানের কাচা আমের চাহিদা অনেকটাই অত্র এলাকা থেকে পূরুণ হয়ে থাকে।
কৃষি বিভাগ এবছর ৫ হাজার ৮শ ৫০মেট্রিক টন আম উৎপাদনের লক্ষমাত্রা নির্ধারণ করেছে। লক্ষমাত্রা পূরুণে কৃষি বিভাগ আম চাষিদের পরামর্শ দিয়ে সার্বিক সহযোগিতা করছে। চাষিরা পোকা দমন প্রতিরোধে আমগাছের নিবিড় পরিচর্যায় ব্যস্ত সময় পার করছে।
গদাইপুর গ্রামের চাষি কাজী মেজবাহ উদ্দীন জানান বর্তমানে বাগানের ৮০ভাগ গাছে মূকুল এসেছে। আশা করছি এবছর ভালো ফলন হবে।
উপজেলা কৃষি অফিসার মোঃ জাহাঙ্গীর আলম জানান মূকুলে পোকার আক্রমন ও গুটি ঝরার ফলে আমের উৎপাদন কম হয়ে থাকে। এজন্য চাষিদেরকে আগে ভাগে পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।
পরামর্শ অনুযায়ী চাষিরা সরকার অনুমোদিত কীটনাশক  ব্যবহার ও নিবিড় পরিচর্যা  করছে। আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে এবছর আমের উৎপাদন ভালো হবে বলে কৃষি বিভাগের এ কর্মকর্তা জানিয়েছেন।
Alert! This website content is protected!