বি.দ্রঃদৈনিক নতুন ভাবনাপত্রিকায় প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার সম্পূর্ন লেখকের/প্রতিনিধির।আমরা লেখক প্রতিনিধির চিন্তা ও মতামতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল।প্রকাশিত লেখার সাথে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল সবসময় নাও থাকতে পারে।তাই যে কোনো লেখার জন্য অত্র পত্রিকার কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।

তাজা খবর

পাইকগাছায় সরকার প্রদত্ত ঘর পাচ্ছেন ২২০ ভূমিহীন পরিবারর এডিসি ও ইউএনও’র নির্মাণ কাজ পরিদর্শন

ইমদাদুল হক,পাইকগাছা,খুলনাঃ-
পাইকগাছায় প্রধানমন্ত্রী  শেখ হাসিনার উপহার হিসাবে মুজিব শতবর্ষে স্থায়ী ঠিকানা পাচ্ছেন ২২০ ভূমি ও গৃহহীন হতদরিদ্র পরিবার। এ সব পরিবারের প্রত্যেকর জন্য নির্মাণ করা হচ্ছে  উন্নতমানের পাকা বাড়ি। মুজিব শতবর্ষে দেশের একটি মানুষও গৃহহীন থাকবে না, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এমন নির্দেশনার আলোকে প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের অগ্রাধিকার ভিত্তিক প্রকল্প আশ্রয়ন প্রকল্প-২ (ক) শ্রেণি এর আওতায় প্রথম ধাপে নির্মাণ করা হচ্ছে  ২২০টি ঘর। প্রতিটি ঘরের অনুকূলে ব্যয় ধরা হয়েছে ১ লাখ ৭১ হাজার টাকা। উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে সরকারি জায়গা নির্ধারণ করে সেখানেই নির্মাণ করা হচ্ছে  ভূমিহীনদের জন্য উন্নতমানের এসব ঘর। ২ শতক জমির ওপর ২ কক্ষ বিশিষ্ট ঘর নির্মাণ করা হচ্ছে । এর মধ্য থাকছে রান্নাঘর ও বাথরুম। নতুন বছরের শুরুতেই সবুজ রঙের টিনের ছাউনীর পাকা ঘর ঠিকানা হতে যাচ্ছে উপজেলার ২২০টি গৃহহীন পরিবারের। উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটির তত্বাবধায়নে ঘর নির্মাণ কাজ চলছে দ্রুত গতিতে এগিয়ে। বিগত কয়েক মাস উপজেলার এ প্রান্ত থেকে অপার প্রান্তে ছুটে ছুটে ঘর নির্মাণের জন্য সরকারি জায়গা নির্ধারণ করেছেন উপজেলা প্রশাসনের তরুণ দুই কর্মকর্তা ইউএনও এবিএম খালিদ হোসেন সিদ্দিকী ও এসিল্যান্ড মুহাম্মদ আরাফাতুল আলম। ইতোমধ্য গৃহহীনদের তালিকাও চূড়ান্ত করা হয়েছে। এদিকে গুণগতমান বজায় রেখে যাতে ঘর নির্মাণ করা হয় এজন্য নির্মাণ কাজ সার্বিক তদারকি করছেন খুলনা জেলা প্রশাসন। জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হেলাল হোসেনের নির্দেশনায় শনিবার উপজেলার বিভিন্ন স্থানে নির্মাণ কাজ পরিদর্শন করেছেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক এলএ মেছাঃ শাহানাজ পারভীন ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার এবিএম খালিদ হোসেন সিদ্দিকী। এ সময় উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা ইমরুল কায়েস । জেলা প্রশাসনের এ কর্মকর্তা হরিঢালী ইউনিয়নের চরকপোতাক্ষী ও রাড়ুলী ইউনিয়নের আলোকদ্বীপ এলাকার নির্মাণ কাজ পরিদর্শন করে সকল উপকরণের গুণগতমান বজায় রেখে নির্মাণ কাজ দ্রুত সম্পন্ন করার জন্য দিক নির্দেশনা প্রদান করেন। এডিসি শাহানাজ পারভীন বলেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান একটি ক্ষুধা ও দারিদ্র মুক্ত দেশের স্বপ্ন দেখে ছিলেন। বঙ্গবন্ধু চেয়ে ছিলেন  একটি মানুষও গৃহহীন কিংবা না খেয়ে থাকবে না। জাতির জনকের এমন স্বপ্ন লালন করে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মুজিব শতবর্ষে ঘোষণা দিয়েছেন দেশের একটি মানুষও ভূমিহীন থাকবে না। এ কর্মসূচির আওতায় জেলার বিভিন্ন স্থানে গৃহহীনদের জন্য উন্নতমানের ঘর নির্মাণ করা হচ্ছে । জেলা প্রশাসন থেকে চলমান এ নির্মাণ কাজ সার্বিকভাবে তদারকি করা হচ্ছে ।  উপজেলা নির্বাহী অফিসার এবিএম খালিদ হোসেন সিদ্দিকী জানান, ইতোমধ্য উপকারভোগীদের তালিকা এবং সরকারি জায়গা নির্ধারণ করা হয়েছে। নির্মাণ কাজও গুণগতমান বজায় রেখে দ্রুত গতিতে এগিয় চলেছে। আশা করছি নতুন বছেরর শুরুর দিকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহার হিসাবে নবনির্মিত এ সব ঘর তালিকাভুক্ত ভূমিহীনদের নিকট হস্তান্তর করতে পারবো।
Alert! This website content is protected!