বি.দ্রঃদৈনিক নতুন ভাবনাপত্রিকায় প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার সম্পূর্ন লেখকের/প্রতিনিধির।আমরা লেখক প্রতিনিধির চিন্তা ও মতামতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল।প্রকাশিত লেখার সাথে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল সবসময় নাও থাকতে পারে।তাই যে কোনো লেখার জন্য অত্র পত্রিকার কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।

তাজা খবর

পিরোজপুরে স্ত্রীকে হত্যার দায়ে স্বামীর ফাঁসি

মোঃ সানমুন রেজা, পিরোজপুর থেকেঃ  পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় ২০১৪ সালে যৌতুকের দাবিতে স্ত্রীকে হত্যার দায়ে স্বামীকে মৃত্যুদন্ডাদেশ দিয়েছেন আদালত। মঙ্গলবার দুপুরে পিরোজপুরের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক মো. মিজানুর রহমান এ আদেশ দেন। আদালত সাজাপ্রাপ্তকে আরও এক লাখ টাকা জরিমানাও করেছেন। তবে অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় অন্য দুই আসামিকে মামলা থেকে অব্যাহতি দিয়েছেন আদালত। সাজাপ্রাপ্ত মো. হালিম ঢালী (৪৪) পিরোজপুরের মঠবাড়িয়া উপজেলার উত্তর মিঠাখালী গ্রামের মাঝেরপুল এলাকার মৃত নূর মোহাম্মদ ঢালীর ছেলে। স্ত্রীকে হত্যার পর থেকেই পলাতক রয়েছে সাজাপ্রাপ্ত হালিম। আদালত সূত্রে জানা গেছে, ২০১৩ সালে একই উপজেলার সেনের টিকিকাটা গ্রামের মৃত মতি মিয়ার মেয়ে হাসি বেগমের (২৪) সঙ্গে হালিমের বিয়ে হয়। বিয়ের পর যৌতুকের দাবিতে প্রায়ই হাসিকে শারীরিক ও মানসিকভাবে নির্যাতন করত তার স্বামী হালিম। ২০১৪ সালের ২৪ এপ্রিল রাতে প্রথম স্ত্রী এবং বোনের সহায়তায় হাসিকে মারধর করে মারাত্মকভাবে আহত করে তার স্বামী হালিম।
এরপর হাসিকে প্রথমে মঠবাড়িয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এবং পরবর্তীতে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা দেয় হাসির পরিবার। তবে বরিশালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ৭ মে মৃত্যুবরণ করে হাসি। এ ঘটনায় মৃত হাসির মা আনোয়ারা বেগম বাদী হয়ে ১১ মে মঠবাড়িয়া থানায় হালিম, তার প্রথম স্ত্রী এবং বোনকে আসামী করে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা দায়ের করেন। এরপর ওই বছর সেপ্টেম্বর মাসে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা তিন আসামিকে অভিযুক্ত করে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। তবে হাসির স্বামী হালিম বাদে অন্য দুই আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় তাদেরকে মামলা থেকে অব্যাহতি দিয়েছেন আদালত।
Alert! This website content is protected!