বি.দ্রঃদৈনিক নতুন ভাবনাপত্রিকায় প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার সম্পূর্ন লেখকের/প্রতিনিধির।আমরা লেখক প্রতিনিধির চিন্তা ও মতামতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল।প্রকাশিত লেখার সাথে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল সবসময় নাও থাকতে পারে।তাই যে কোনো লেখার জন্য অত্র পত্রিকার কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।

তাজা খবর

প্রচার-প্রচারণায় জমে উঠেছে কেশরহাট পৌরসভা নির্বাচন

সুমন শান্ত,মোহনপুর থেকেঃ
আসন্ন কেশরহাট পৌরসভা নির্বাচনে প্রার্থীদের গণসংযোগ আর প্রচার-প্রচারণায় জমে উঠেছে এলাকা। আগামী ৩০ জানুয়ারী অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে কেশরহাট পৌরসভা নির্বাচন। প্রতিশ্রুতির ফুলঝুরি নিয়ে প্রার্থীরা ছুটছেন ভোটারের দ্বারে দ্বারে। প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন পরিছন্ন আধুনিক পৌরসভা গড়ার।
প্রত্যেক প্রার্থীই জয়ের ব্যাপারে আশাবাদি। আর ভোটাররা বলছেন,সৎ ও যোগ্য প্রার্থীকেই বেছে নেবেন তারা। পৌর নির্বাচনের দিন যতই ঘনিয়ে আসছে ততই শীতের সাথে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে নির্বাচনী উত্তাপ।
কেশরহাট  পৌর এলাকার অলিগলি, সড়ক আর বাজারহাট ছেয়ে গেছে প্রার্থীদের প্রচারমুলক পোস্টার-ব্যানারে।
মাইকিং ছাড়াও চলছে সোশ্যাল মিডিয়াতে নির্বাচনী প্রচারণা। চায়ের স্টলগুলোতে চলছে চায়ের আড্ডা। বুঝতে বাকি নাই পৌর নির্বাচন খানিকটা জমে উঠেছে। করোনা আতঙ্ক ও শীতকে উপেক্ষা করেই চলছে প্রারণা।
একইভাবে নিজ নিজ প্রতীকে ভোট প্রার্থনা করে পাড়া-মহল্লা চষে বেড়াচ্ছেন কাউন্সিলর প্রার্থীরাও। তবে এখন পর্যন্ত এগিয়ে রয়েছেন আওয়ামীলীগ মনোনীত একক প্রার্থী মোহনপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্মসম্পাদক বর্তমান মেয়র শহিদুজ্জামান শহিদ।
কেশরহাট পৌর নির্বাচনে এবারে মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থী উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্নসম্পাদক ও বর্তমান মেয়র শহিদুজ্জামান শহিদ(নৌকা প্রতীক) এবং বিদ্রোহী প্রার্থী ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি রুস্তম আলী প্রামাণিক (নারিকেল গাছ প্রতীক)।
এছাড়া মেয়র পদে লড়ছেন বিএনপির দলীয় প্রার্থী পৌর বিএনপির আহবায়ক কমিটির সাধারণ সম্পাদক খুশবর রহমান(ধানের শীষ প্রতীক)এবং জামায়াত সমর্থিত স্বতন্ত্র প্রার্থী,কেশরহাট পৌর জামায়াত নেতা ডা. হাফিজুর রহমান আকন্দ(জগ প্রতীক)।
মেয়র এবং কাউন্সিলর পদে এবারের নির্বাচনে ৪০ জন প্রার্থী অংশগ্রহণ করছে। এর মধ্যে মেয়র পদে ৪ জন এবং কাউন্সিলর পদে ৩৬ জন প্রার্থী রয়েছেন।
পৌরসভার ৯ ওয়ার্ডে ৩টি সংরক্ষিত আসনসহ মোট ৩৫জন প্রার্থী কাউন্সিলর পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবে। অপরদিকে ৩ নং ওয়ার্ডে সাধারণ কাউন্সিলর প্রার্থী ছিলেন ৩ জন। এদের মধ্যে ২জন নিজেদের প্রার্থীতা প্রত্যাহার করায় সাবেক কাউন্সিলর হাফিজুর রহমান বকুল বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় কাউন্সিলর নির্বাচিত হয়েছেন।
কেশরহাট পৌরসভার মোট ভোটার ১৫ হাজার ৭৭৬ জন। এর মধ্যে পুরুষ ৭ হাজার ৬৮১জন এবং মহিলা ৮ হাজার ৯৫ জন।
Alert! This website content is protected!