বি.দ্রঃদৈনিক নতুন ভাবনাপত্রিকায় প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার সম্পূর্ন লেখকের/প্রতিনিধির।আমরা লেখক প্রতিনিধির চিন্তা ও মতামতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল।প্রকাশিত লেখার সাথে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল সবসময় নাও থাকতে পারে।তাই যে কোনো লেখার জন্য অত্র পত্রিকার কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।

তাজা খবর

বানারীপাড়ার ক্রীড়াঙ্গনকে  যিনি আজও বাঁচিয়ে রেখেছেন

রাহাদ সুমন//
বরিশালের বানারীপাড়া উপজেলার ক্রীড়াঙ্গনকে যিনি আজও বাঁচিয়ে রেখেছেন তিনি প্রেসক্লাবের সহ-সভাপতি ও গাভা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ক্রীড়া শিক্ষক কে এম শফিকুল আলম জুয়েল।
ব্যক্তিগত জীবনে তিনি একজন কৃতী ফুটবলার। তারপরেও সব ধরণের খেলাধুলায় তার রয়েছে সমান পারদর্শিতা। সর্বজন প্রিয় নিঃর্মোহ এ কৃতী খেলোয়াড়  সমাজকে  কলুষতমূক্ত করতে কিশোর ও যুবকদের   মাদকসহ যাবতীয় অনৈতিক কাজ থেকে দূরে রাখতে তাদের পিছনে সর্বদা পড়ে থাকেন,তাদেরকে খেলার মাঠে টেনে আনতে। তিনি একজন শুধু কৃতী ফুটবলারই নন,প্রশিক্ষক ও রেফারীও। খেলাধুলা যেন তার মন, ধ্যান, জ্ঞান। এ ক্ষেত্রে তিনি আকাশছোঁয়া সফলতায় পৌঁছতে পেরেছেন। কেএম শফিকুল আলম জুয়েল বানারীপাড়া সরকারি মডেল ইউনিয়ন ইনস্টিটিউশনের (পাইলট) সাবেক ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক ও উপজেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি সর্বজন শ্রদ্ধেয় আলহাজ্ব আক্কাস আলী খানের জ্যেষ্ঠ ছেলে। সকলের ‘বড়দা’খ্যাত কৃতী ফুটবলার,সাংবাদিক ও  ক্রীড়া শিক্ষক কে এম শফিকুল আলম জুয়েলকে শুক্রবার ২৭ নভেম্বর বিকেলে বানারীপাড়ার একমাত্র খেলার মাঠটি উপযোগী করে গড়ে তুলতে নিজ হাতে ঘাষ কাটার মেশিন নিয়ে কাজ করতে দেখা গেছে। বানারীপাড়ার ক্রীড়াঙ্গনের হারানো ঐতিহ্যকে ফিরিয়ে আনতে এভাবেই নিরন্তর ভাবে তিনি ছুটে চলছেন। মূলত তার নেতৃত্বেই এখানে ক্রীড়াঙ্গন আবর্তিত হয়ে জ্বলে আছে।
Alert! This website content is protected!