বি.দ্রঃদৈনিক নতুন ভাবনাপত্রিকায় প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার সম্পূর্ন লেখকের/প্রতিনিধির।আমরা লেখক প্রতিনিধির চিন্তা ও মতামতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল।প্রকাশিত লেখার সাথে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল সবসময় নাও থাকতে পারে।তাই যে কোনো লেখার জন্য অত্র পত্রিকার কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।

তাজা খবর

বানারীপাড়ায় ১০ম শ্রেণী’র ছাত্র মনিরের আত্মহত্যার ঘটনায় শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন ও বিক্ষোভ

রাহাদ সুমন, বিশেষ প্রতিনিধি : বরিশালের বানারীপাড়ায় বলদিয়া মলুহার মাধ্যমিক বিদ্যায়ের ১০ম শ্রেনীর  এক শিক্ষার্থীর আত্মহত্যার ঘটনায় স্কুলে শিক্ষার্থী ও এলাকাবাসী মানববন্ধন ও বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করেছে । সীমান্তবর্তী পিরোজপুরের স্বরূপকাঠি উপজেলার বলদিয়া গ্রামের মো. মহসিনের ছেলে মনির হোসেন বানারীপাড়ার  বলদিয়া মলুহার মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ১০ শ্রেনীর মেধাবী ছাত্র। গত শুক্রবার  নিজ বাড়িতে রাতে গলায় ফাঁস লাগিয়ে সে আত্মহত্যা করে। আত্মহত্যার ঘটনায় শিক্ষার্থীও অভিভাবকরা  স্কুলের বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগ এনে ধারাবাহিক বিক্ষোভ ও মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করে আসছে। এরই ধারাবাহিকতায়  ৩  মার্চ বুধবার  বেলা ১১টায় বিদ্যালয় প্রাঙ্গনে বিক্ষোভ ও মানববন্ধনে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা স্কুলে পরীক্ষা চলাকালীন সময়ে শিক্ষকরা পরীক্ষার ফি সহ অন্যান্য পাওনা  টাকা চেয়ে শিক্ষার্থীদের তিরস্কার করার পাশাপাশি বেতনের বিপরীতে কোন রশিদ না দেয়া, ওয়াই ফাই বিল বাবৎ প্রতি শিক্ষার্থীর কাছ থেকে ৫০ টাকা, প্রাইভেট বন্ধ দিলে ১০ টাকা জরিমানা ও  স্কুল বন্ধকালীন সময়ে বিদ্যুৎবিল সহ অন্যান্য চাঁদা আদায় সহ অশোভনীয় আচরনের  অভিযোগ করেন। এসময় শিক্ষার্থীরা তাদের সহপাঠি মনিরের মৃত্যুর প্রকৃত কারন উৎঘাটন করে দোষীদের শাস্তির দাবী করেন। মহামারি করোনায়  শিক্ষা প্রতিষ্ঠান  বন্ধের মধ্যে পরীক্ষার বিষয়ে শিক্ষার্থীরা জানায় আমাদের এবং আমাদের অভিভাবকদের অনুরোধে শিক্ষকরা পরীক্ষা নিয়েছেন। এদিকে  এসব অভিযোগের বিষয়ে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মিহির কুমার রায়  বলেন শিক্ষার্থীদের সকল অভিযোগ ভিত্তিহীন আমরা বরং মনিরের লেখাপড়ার সকল দায় দায়িত্ব নিয়েছিলাম। ওর সকল পড়া লেখার খরচ ফ্রি করে দেয়া হয়েছিলো। শিক্ষার্থীরা কোন উদ্দেশ্যে বিক্ষোভ করছে তা আমার বোধগম্য হচ্ছে না। এ প্রসঙ্গে বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুস ছত্ত্বার  বলেন, আমরা সর্বদা শিক্ষার্থীদের মঙ্গল চাই। আমার একটা ঘোষনা রয়েছে ফরম পূরণের জন্য আর্থিক সমস্যার কারনে কোন শিক্ষার্থী যেন বাধাগ্রস্থ না হয়। যে শিক্ষার্থী যা দিবে তার বাকী টাকা আমি দিব। এ প্রসঙ্গে ইলুহার ইউপি চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম বলেন,মনিরের মৃত্যুতে আমরা সবাই শোকাহত। তার মৃত্যুতে স্কুল কর্তৃপক্ষের  কর্মকান্ডে  যদি কোন বিন্দু পরিমান দোষ প্রমানিত  হয় তাহলে তার সুষ্ঠ বিচার হবে। এদিকে বিক্ষোভরত শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুস ছত্তার  আশ্বস্ত করে বলেন  অভিযোগের বিষয়ে তদন্তপূর্বক  প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।  তার আশ্বাসে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা সোমবার পর্যন্ত তাদের কর্মসূচি স্থগিত করে।
Alert! This website content is protected!