বি.দ্রঃদৈনিক নতুন ভাবনাপত্রিকায় প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার সম্পূর্ন লেখকের/প্রতিনিধির।আমরা লেখক প্রতিনিধির চিন্তা ও মতামতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল।প্রকাশিত লেখার সাথে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল সবসময় নাও থাকতে পারে।তাই যে কোনো লেখার জন্য অত্র পত্রিকার কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।

তাজা খবর

মামুন মালের দুই নয়ন স্বচ্ছ ও জবাবদিহিতা মূলক গ্রামীণ অবকাঠামোগত উন্নয়ন

স্টাফ রিপোর্টার ঃ-আসন্ন ইউপি নির্বাচনে চাঁদপুর সদর উপজেলার ২নং আশিকাটি ইউনিয়ন যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক মোঃ সাইফুল ইসলাম মামুন মাল বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ থেকে ইউপি চেয়ারম্যান পদে দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশী।

মোঃ মামুন মালের পারিবারিক পরিচয়: তার পিতা মরহুম ইউনুস মাল ২নং আশিকাটি ইউনিয়নের সাবেক মেম্বার ছিলেন। মরহুম ইউনুস মালের রাজনৈতিক পরিচয়, তিনি মহান স্বাধীনতার পর থেকে ২নং আশিকাটি ইউনিয়নস্থ ১নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন একটানা ৩০ বছর। যোগ্য পিতার আদর্শ নিয়ে তারই অনুপ্রেরণায় ছাত্র জীবন থেকেই বাংলাদেশ ছাত্রলীগের পতাকা তলে আসিন হন সাইফুল ইসলাম মামুন মাল। ১৯৯৮ সালে তিনি ২নং আশিকাটি ইউনিয়নস্থ ১নং ওয়ার্ড ছাত্রলীগের সভাপতি নির্বাচিত হন। শুরু করেন নেতৃত্বের ছাত্র রাজনীতি, একটানা ৬ বছর ওয়ার্ড ছাত্রলীগের সভাপতি দায়িত্ব অত্যন্ত পরিছন্ন ও দাপুটের সহিত ২০০৩ পর্যন্ত পালন করেন। এছাড়াও সাইফুল ইসলাম মামুন মাল শেখ রাসেল স্মৃতি সংসদ চাঁদপুর সদর উপজেলা শাখার যুগ্ম সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। এরপর ২০০৪ সালে জীবন-জীবিকার তাগিদে পরিবার-পরিজন ছেড়ে পাড়ি দেন দক্ষিন আফ্রিকায়। সেখানে গিয়েও তিনি সাউথ আফ্রিকা স্ট্যান ক্যাম্প আওয়ামী লীগের যুগ্মসাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব অত্যন্ত সুনামের সহিত পালন করেন। পরবর্তীতে ২০১১ সালে তিনি বাংলাদেশে এসে ২নং আশিকাটি ইউনিয়ন যুবলীগের হাল ধরেন। ২০১৭ সালে ইউনিয়ন যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক নির্বাচিত হন। অদ্যবদি ইউনিয়ন যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক পদে বহাল রয়েছেন। এছাড়াও তিনি ইউনিয়ন কমিউনিটি পুলিশিংয়ের প্রচার সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করছেন।

সাইফুল ইসলাম মামুন মাল এবার ইউনিয়নবাসীর জন্যে কিছু করতে চান বলেই দলীয় মনোনয়ন নিয়ে ২নং আশিকাটি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান প্রার্থী হতে চান।

নির্বাচন নিয়ে তার কিছু কথা: আমি বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের একজন নগন্য কর্মী। আমি দলীয় মনোনয়ন নিয়ে ২নং আশিকাটি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান প্রার্থী হতে চাই। দল যদি আমাকে মনোনয়ন দেয় আমি দলমত নির্বিশেষে বিপুল ভোটে নির্বাচিত হবো ইনশাআল্লাহ। আর নির্বাচনে জয়ী হলে আমার প্রথম কাজটি হবে ইউনিয়নকে শতভাগ মাদকমুক্ত করা। কারণ মাদক আমাদের আগামীর ভবিষ্যতকে ধ্বংস করছে, আমি নির্বাচিত হলে অন্তত আমার ইউনিয়নে কাউকে মাদকের স্পর্শ লাগতে দিবো না। আর এজন্য ইউনিয়নের প্রতিটি ওয়ার্ডে মাদক বিরোধী কমিটি গঠন করে ওই কমিটির মাধ্যমে ইউনিয়নকে মাদকমুক্ত করবো।

তিনি বলেন, ২নং আশিকাটি ইউনিয়নের প্রাথমিক প্রর্যায়ের স্কুল শিক্ষার্থীদের অভিভাবকদের উদদ্ধু করবো তাদের সন্তানদের বিদ্যালয়মুখী করতে। এলাকার শিশু কিশোরদে বিনোদনের স্পেস তৈরি করবো, যাতে খেলাধুলার মাধ্যমে শিশুদের মেধা বিকাশ ঘটে। আমার পরিষদটির স্বচ্ছ ও জবাবদিহিতা মূলক গ্রামীণ অবকাঠামোগত উন্নয়ন তথা অগ্রাধিকার ভিত্তিতে রাস্তাঘাট, কালভাট, মসজিদ মন্দির, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, বেকার যুবক যুবতীদের যথাযথ প্রশিক্ষণের মাধ্যমে স্বাবলম্বী করে তোলাই মুল লক্ষ্য উদ্দেশ্য থাকবে । নারী ও শিশু নির্যাতন, পাচার, এসিড সন্ত্রাস, বাল্য বিবাহ এবং চোরাচালানের বিরুদ্ধে জনমত গড়ে তুলবো। সর্বপরি সকলের সহযোগীতায় ২নং আশিকাটি ইউনিয়নকে একটি আলোকিত মডেল ইউনিয়ন হিসেবে গড়ে তুলতে ইউনিয়ন বাসীর দোয়া ও সমর্থন চাই।

Alert! This website content is protected!