বি.দ্রঃদৈনিক নতুন ভাবনাপত্রিকায় প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার সম্পূর্ন লেখকের/প্রতিনিধির।আমরা লেখক প্রতিনিধির চিন্তা ও মতামতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল।প্রকাশিত লেখার সাথে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল সবসময় নাও থাকতে পারে।তাই যে কোনো লেখার জন্য অত্র পত্রিকার কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।

তাজা খবর

শেখ হাসিনাকে রাজনীতিতে আসতে বাধাগ্রস্ত করতে চেয়েছিল যারা!

সোহেল সানি:-
জিয়াউর রহমানের শাসনামলে শেষপ্রান্তে সারাদেশের আর্থসামাজিক রাজনৈতিক অস্থিরতা সর্বোপরি চরম নৈরাজ্যকর পরিস্থিতির মুখে বাংলাদেশে পা রাখেন বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা।
১৯৮১ সালের ১৭ মে স্বদেশে ফেরেন মাত্র ৩৩ বছর বয়স যখন। ফেরার পরপরই  শুরু হয় নানা ষড়যন্ত্র চক্রান্ত। এতে  সরকারি মালিকানাধীন সংবাদ মাধ্যম ছাড়াও ব্যক্তিমালিকানাধীন অনেক পত্রিকা জনমনে বিভ্রান্তি ছড়ানোর নানাবিধ অপপ্রচার শুরু করে দেয়। শেখ হাসিনার  স্বদেশে ফেরাকে বাধাগ্রস্ত করতে নানামুখী অপপ্রচার উল্লেখযোগ্য ঘটনা। সরকারি মালিকানাধীন সাপ্তাহিক বিচিত্রার সম্পাদক হিসাবে দেশবরেণ্য কবি শামসুর রাহমানের নাম ছাপা হলেও ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক হিসাবে শাহাদাত চৌধুরী কলকাঠি নাড়েন।
তিনি মাহফুজ উল্লাহকে নয়াদিল্লিতে প্রেরণ করেন। ঢাকায় বসে মাহফুজ উল্লাহর তথ্যউপাত্তের ভিত্তিতে  আহমেদ নূরে আলম, শেহাব আহমেদ ও জগলুল আলম বিভিন্ন রিপোর্ট প্রকাশ করেন। ‘আওয়ামী লীগের প্রবাসী নেতৃত্ব ভারতের রাজনৈতিক আশ্রয়ে আছি’ শিরোনামে সাপ্তাহিক বিচিত্রা প্রচ্ছদ প্রতিবেদন প্রকাশ করে ১৯৮১ সালের ১৩ মার্চ সংখ্যায়।
ভারতের আনন্দ বাজার পত্রিকার একটি সম্পাদকীয় থেকে উদ্ধৃতি দিয়ে ‘ তার আগে চার মার্চ এক প্রতিবেদনের শিরোনাম দেয় ’শেখ হাসিনাকে কেন্দ্র করেই ভারত এখন স্বপ্ন দেখে। প্রতিবেদনে বলা হয়, অকৃতজ্ঞ   বাংলাদেশকে শিক্ষা দেয়ার জন্যই বাংলাদেশের সঙ্গে কঠোর ব্যবহার করবে। কেননা এই বাংলাদেশি জাতি ভারতের অবদান ও বন্ধুত্বকে ভুলে গেছে। ভারতের মস্কোপন্থী কমিউনিস্ট পার্টির দৈনিক প্যাট্রিয়টের একটি প্রতিবেদনের উদ্ধৃতি দিয়ে বলা হয়,  ন্যাপ ও কমিউনিস্ট পার্টির সমন্বয়ে গঠিত বাকশালের আদর্শ উদ্দেশ্যকেই গুরুত্ব দিচ্ছে আওয়ামী লীগ।
শেখ হাসিনা ও তাঁর স্বামী ড. এম এ ওয়াজেদ মিয়ার মধ্যে ভুল বোঝাবুঝি সৃষ্টি করারও জন্য এক প্রতিবেদনে লেখা হয়, ‘ কিন্তু স্ত্রীর নতুন পরিচয় তাঁর জন্য সুখকর নয়’। যেমন করেই হোক তিনি রাজনীতির সঙ্গে নিজেকে জড়াতে চান না, ফিরেও আসতে চান না দেশে। কেননা যোগ্যতার মাপকাঠিতে চাকুরী একটা মিলবে অন্য কোথাও। তাঁর (ড. ওয়াজেদের) দুঃখ অন্যত্র। এক সময় সবাই বলতো বঙ্গবন্ধুর জামাই, আর এখন বলবে হাসিনার স্বামী।
বিচিত্রায় লেখা হয়, ভারতের সরকারের আশ্রয়ে শেখ হাসিনা অবস্থান করলেও আওয়ামী লীগের সভানেত্রী হওয়ার প্রেক্ষাপটে ভারত তাকে ও তার দলকে সমর্থন করছে না। দিল্লির পর্যবেক্ষক মহল মনে করেন, বর্তমান পরিস্থিতিতে, বিশেষ করে যখন পাকিস্তানের সঙ্গে ভারতের সম্পর্ক উন্নয়ন হচ্ছে এবং মিসেস ইন্দিরা গান্ধী অভ্যন্তরীণ প্রতিকূল অবস্থার সম্মুখীন, তখন তিনি নতুন রাজনৈতিক ঝুঁকি নিতে রাজি নন। এছাড়া মিসেস গান্ধী নাকি মনে করেন, আওয়ামী লীগ নেতৃত্ব সমর্থন পাবার মতো সঠিক অবস্থানে নেই। শুধু তাই নয়, শেখ হাসিনা নাকি ভারতে বসে বাংলাদেশ বিরোধী প্রচারণা করছেন এমন প্রশ্ন পর্যন্ত উত্থাপন করা হয় বিচিত্রায়।
আওয়ামী লীগের ভবিষ্যত নিয়ে হতাশা প্রকাশ করে বিচিত্রায় বলা হয়, ‘শেষ পর্যন্ত আওয়ামী লীগের ভগ্নতরী ঝঞ্ঝাবিক্ষুব্ধ কাউন্সিল সমুদ্র জোড়াতালি দিয়ে পার হতে পেরেছে।’ পেরেছে ভাঙ্গনকে সাময়িকভাবে ঠেকিয়ে রাখতে, কিন্তু অসমস্বত্ব মিশ্রণের এই ঐক্য কতদিন টিকবে সে সম্পর্কে আশাবাদ ব্যক্ত করা কঠিন।
প্রতিটি কর্মতৎপরতা ও বক্তব্যে নেতাদের পরস্পরের প্রতি দেখা যাচ্ছে সন্দেহ ও অবিশ্বাস। আওয়ামী লীগের ডাকে সাড়া দিতে দলের সমর্থক কর্মীরাই এখন বাধাগ্রস্ত।
তাদের এই নির্লিপ্ততা নেতাদের প্রথম হতাশাপীড়িত করে তুলছে। কাজেই আগামী দিনগুলোতে ঘটনাজাল আবার কোনদিকে মোড় নেবে তা হয়ে উঠেছে একরকম অনিশ্চিত।’
তৎকালীন জিয়া সরকার শেখ হাসিনা যাতে রাজনীতিতে না আসেন এবং আওয়ামী লীগ যাতে খন্ড-বিখন্ড হয়ে নিঃশেষ হয়ে যায়, সেই পরিকল্পনা থেকেই কতিপয় সাংবাদিককে ব্যবহার করেন। কিন্তু শেখ হাসিনা সকল বাঁধা অতিক্রম করে ১৯৮১ সালের ১৭ মে স্বদেশে প্রত্যাবর্তন করে আওয়ামী লীগের সরাসরি নেতৃত্ব গ্রহণ করেন।
শেখ হাসিনা দেশে ফিরে টুঙ্গিপাড়ায় সমাহিত জাতির পিতার কবরের পাশে এক সপ্তাহ কাটিয়ে ২৯ মে হযরত শাহজালাল ও হযরত শাহপরানের মাজার জিয়ারতের উদ্দেশ্যে সিলেট গমন করেন। ওদিন সরকারি আলিয়া মাদ্রাসা মাঠে আনুষ্ঠানিকভাবে প্রথম রাজনৈতিক সমাবেশ করেন। একদিকে ঝড়বৃষ্টির অঝর ধারা আরেকদিকে মনের মাঝে পিতামাতা ভাইসহ স্বজনহারানোর বেদনার অশ্রুধারাকে সাথী করে শেখ হাসিনার বাংলাদেশের উৎকট রাজনৈতিক ময়দানে চলা শুরু হয়।
দৈনিক ইত্তেফাকের রিপোর্টে বলা হয় শেখ হাসিনার ওই জনসভায় অন্তত তিন লাখ লোকের সমাগম ঘটেছিলো।
শেখ হাসিনা ২৯ মে’র ওই সিলেট সমাবেশে বলেন, ছয় বছর পর দেশে এসে যা দেখতে পাচ্ছি তা উদ্বেগজনক। অর্থনীতি দেউলিয়া, আইনশৃঙ্খলা বলতে কিছু নেই। দেশে সরকার আছে কিনা তা বলা মুশকিল। সার্বিক নৈরাজ্যকর অবস্থায় জনগণের পিঠ দেয়ালে ঠেকে গেছে। আন্দোলন ছাড়া আর পথ নেই। একমাত্র বৃহত্তর আন্দোলনের মাধ্যমেই জনগণকে বর্তমান অবস্থা থেকে মুক্ত করা সম্ভব। শেখ হাসিনা বলেন, আওয়ামী লীগের ইতিহাস আন্দোলনের ইতিহাস। দেশের সংকটাবস্থায় অতীতে কখনও আওয়ামী লীগ বসে থাকেনি। এখনও বসে থাকবে না। অচিরেই জনগণকে সাথে নিয়ে বৃহত্তর আন্দোলনের ডাক দেয়া হবে। জনগণের মুক্তির লক্ষ্যে বাকশাল কর্মসূচি বাস্তবায়নই আন্দোলনের লক্ষ্য।
বাংলাদেশের জনগণ বঙ্গবন্ধু ও অন্যান্য নেতার হত্যার প্রতিশোধ নেবে। আর হত্যার রাজনীতির বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলবে। আমি পিতার অসমাপ্ত কাজ দ্বিতীয় বিপ্লব সম্পন্ন করার জন্য আওয়ামী লীগের কর্মী হিসেবে দেশে ফিরেছি। দোয়া ও সমর্থন চেয়ে শেখ হাসিনা বলেন, যদি জনগণের মুক্তি আনতে না পারি, আমি যদি ব্যর্থ হই, তবে পিতার কাছেই চলে যাবো। (দৈনিক সংবাদ, ৩০ মে ১৯৮১)
১৯৮১ সালের ২৯ মে শেখ হাসিনা হযরত শাহজালালের মাজার জিয়াররতের মাধ্যমে সিলেটে প্রথম রাজনৈতিক সমাবেশে “দেশে হত্যার রাজনীতির অবসান ঘটাতে হবে।
পরের দিন ৩০ মে বাংলাদেশের রাজনীতিতে নেমে আসে আরেকটি মহাবিপর্যয়। চট্রগ্রাম সার্কিট হাউজে রাষ্ট্রপতি মেজর জেনারেল জিয়াউর রহমান এক সেনা অভ্যুত্থানে নিহত হন। রাষ্ট্রপতি নিহত হওয়ায় তৎকালীন উপরাষ্ট্রপতি বিচারপতি আব্দুস সাত্তার অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি হিসাবে শাসনভার গ্রহণ করেন। তিনি দেশে জরুরি অবস্থা জারি করেন।
এমন অবস্থায় ৪ জুন আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী সংসদের জরুরি বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।
জিয়াউর রহমানের হত্যাকাণ্ডকে পঁচাত্তরের পনেরই আগস্ট বঙ্গবন্ধু ও তাঁর পরিজন এবং ৩ নভেম্বর কারারুদ্ধ চার নেতা হত্যার জঘন্য ও কলঙ্কময় অধ্যায়ে আরেকটি দুঃখজনক ঘটনার সংযোজন বলে উল্লেখ করা হয়।
বিদেশী শক্তি ও তাদের দেশীয় এজেন্টদের দ্বারা হত্যাকাণ্ডের মাধ্যমে ক্ষমতাদখল বা দখলের প্রচেষ্টা জাতির জন্য বিষময় ফল ডেকে আনে, এ পরিণতির প্রতি ইঙ্গিত দিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, এরূপ জঘন্য অপরাধী যাতে বিচারের হাত থেকে রেহাই না পায়, সেজন্য সমগ্র জাতিকে সংকল্পবদ্ধ হতে হবে। (সূত্র দৈনিক ইত্তেফাক, ৫ জুন)
বৈঠকে এই মর্মে সিদ্ধান্ত গৃহীত হয় যে, ” বিরাজমান পরিস্থিতির সুযোগ নিয়ে সাংবিধানিক প্রক্রিয়া ও বর্তমান সীমিত গণতান্ত্রিক বিধিব্যবস্থা নস্যাতের যেকোন চক্রান্তের ব্যাপারে সোচ্চার থাকবে আওয়ামী লীগ। প্রস্তাবে বলা হয়, সশস্ত্র বাহিনীকে রাজনৈতিক অঙ্গনে ব্যবহার করা উচিত নয়। প্রয়োজনবোধে সর্বশক্তি দিয়ে গনবিরোধী ও স্বাধীনতাবিরোধী শক্রিসমুহের  তৎপরতা ও ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানোর আহবান জানান শেখ হাসিনা।
উল্লেখ্য অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি বিচারপতি আব্দুস সাত্তারের শাসনামলের শুরুতে অর্থাৎ ৮১ সালের ১২ জুন বত্রিশ নম্বরের বাড়িটি বুঝে পান শেখ হাসিনা। বঙ্গবন্ধু কন্যা এই বাড়িতে বসবাস করলেও ১৯৯৬ সালের ১২ জুনের নির্বাচনের মাধ্যমে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় আসীন হওয়ার পর বত্রিশ নম্বরের ওই বাড়িটিকে বঙ্গবন্ধু জাদুঘরে পরিণত করা হয়।
লেখকঃ সিনিয়র সাংবাদিক ও কলামিস্ট।
Alert! This website content is protected!